বিভাগীয়, Uncategorized

বর্নি এম. মুন্তাজিম আলী কলেজের ছাত্র ছাত্রলীগ কর্মি প্রান্ত চন্দ্র দাসকে হত্যার রহস্য উদ্ঘাটিত: স্ত্রীকে উত্যক্তের জেরে হত্যা করে পিসাতো ভাই সুমন ,

সিলেটের ,মৌলভী বাজার জেলার,বড়লেখা উপজেলার বর্নি ইউনিয়নের
বর্নি এম. মুন্তাজিম আলী কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের মেধাবী ছাত্র প্রান্ত চন্দ্র দাসকে পিসাতো ভাই সুমন চন্দ্র দাস (৩৪) গলাটিপে হত্যার পর আত্মহত্যার নাটক সাজিয়েছিল। আত্মহত্যা ষ্টাবলিস্ট করতে সে নিহত প্রান্ত দাসের মোবাইল ফোন থেকে বন্ধুমহলসহ বিভিন্ন জায়গায় ম্যাসেজ প্রেরণ করেছে। তবে এতসব পরিকল্পনার পরও সুমনের শেষ রক্ষা হয়নি। প্রান্ত হত্যায় জড়িত সন্দেহে রোববার রাতে পুলিশ তাকেসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সুমন দাস মামাতো ভাই কলেজছাত্র প্রান্তকে হত্যার লোমহর্ষক বর্ণনা দিয়েছে।
চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকান্ডটি সুমন দাস একাই করেছে দাবী করলেও তার দেয়া জবানবন্দী এবং হত্যার পেছনে অন্য কোন কারণ রয়েছে কিনা, কিংবা প্রকৃত খুনীদের আড়াল করতে সুমন এমন বক্তব্য দিচ্ছে কিনা পুলিশ তা যাচাই বাছাই করছে। নিহত প্রান্ত দাস উপজেলার সুজানগর ইউপির বাঘমারা গ্রামের মৃত সনৎ চন্দ্র দাসের ছেলে। হত্যাকান্ডের এ ঘটনায় নিহত প্রান্ত দাসের ভাই শুভ দাস সোমবার সন্ধ্যায় থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ।

সোমবার দুপুরে থানা পুলিশ গ্রেফতার হওয়া সুমন দাসকে গণমাধ্যমকর্মীদের সামনে হাজির করে। এসময় সুমন দাস জানায়, মামাতো ভাই প্রান্ত (১৮) তাদের বাড়িতে থেকে লেখাপড়া করতো। প্রায়ই সে তার স্ত্রী নিভা রানী দাসকে অসভ্যতামী, উত্যক্ত, খারাপ আচরণ ও আপত্তিকর কার্যকলাপ করতো। এজন্য তাকে হত্যার পরিকল্পনা নেয়। ২৯ অক্টোব রাত ন’টার দিকে সে প্রান্তকে ঝাপটে ধরে। প্রান্ত দাস পালানোর চেষ্টা করলে পিছু নিয়ে রাস্তায় গিয়ে পুনরায় তাকে ধরে মূখ চেপে ধরলে ভয়ে সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে মুখ, হাত-পা বেঁধে পরিত্যক্ত রান্নাঘরের খাটের পিছনে রেখে দেয়। পরদিন পর্যন্ত প্রান্ত জীবিত রয়েছে দেখে গলাটিপে হত্যা নিশ্চিতের পর রাত তিনটার দিকে জানালার গ্রীলের সাথে ঝুলিয়ে রাখে যাতে সহজেই ঘটনাটি আত্মহত্যা বলে সবাই বিশ্বাস করে। পরদিন সকালে শিশুরা প্রান্ত দাসের লাশ দেখে চিৎকার করেছিল। আত্মহত্যার ঘটনাটি নিশ্চিত করতে প্রান্তের মোবাইল থেকে ঘাতক সুমন দাস বিভিন্ন জায়গায় ক্ষুদে বার্তা প্রেরণ করেছিল।
এদিকে ছাত্রলীগ নেতা প্রান্ত দাস আত্মহত্যা করেছে এমন প্রচারে এবং লাশ উদ্ধারের দিন থানায় আটক সুমন ও তার স্ত্রীকে প্রভাবশালী মহল ছাড়িয়ে নেয়ায় প্রান্ত দাসের বাবা-মা ও স্বজনদের মাঝে হতাশা বিরাজ করে। এম মুন্তাজিম আলী কলেজের সহপাঠীসহ সকল শিক্ষার্থী লাশ উদ্ধারের পরদিন থেকে ক্লাস বর্জনসহ নানা কর্মসুচি পালন করে। এটি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড দাবী করে শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন কর্মসুচি ও প্রতিবাদ সমাবেশ চালিয়ে যায়। তারা সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে প্রান্ত হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবী জানায়। পরে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংদসের হুইপ শাহাব উদ্দিন ময়না তদন্তে হত্যার আলামত পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিলে শিক্ষার্থীরা গত ৮ নভেম্বর ক্লাসে ফিরে যায়। রোববার দুপুরে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর থানা পুলিশ প্রান্ত দাসের হত্যাকারীদের গ্রেফতারে অভিযানে নামে।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কুলাউড়া সার্কেল) মো. আবু ইউসুফ সোমবার সন্ধ্যায় জানান, রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় লাশ উদ্ধারের পর প্রাথমিকভাবে থানায় ইউডি মামলা হয়। ময়না তদন্তে লাশ পাঠানোর পর পুলিশ হত্যার ইঙ্গিত পেয়েছিল কিন্তু প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত আইনগত ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছিল না। ময়না তদন্ত প্রতিবেদনে হত্যার প্রমাণ পাওয়ায় রোববার রাতেই অভিযান চালিয়ে ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ ৫ জনকে আটক করে। এরমধ্যে নিহতের মামাতো ভাই সুমন দাস প্রান্তকে গলাটিপে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। তবে সে একাই এ হত্যাকান্ডটি ঘটিয়েছে, নাকি আরো সহযোগী রয়েছে তা পুলিশ খতিয়ে দেখছে। এছাড়া স্ত্রীর সাথে অসভ্যতামীর কারণে নাকি অন্য কোন কারণে প্রান্তকে খুন করেছে, নাকি প্রকৃত খুনিকে আড়াল করতে সুনম এ জবানবন্দী দিয়েছে তা গুরুত্ব সহকারে পুলিশ তদন্ত করছে

Advertisements
Uncategorized

বৈশাখী ভাতা ও ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট ঘোষণা দিলেন প্রধানমন্ত্রী

বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের জন্য বৈশাখী ভাতা ও ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) গণভবনে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের অধীনে ৯টি ট্রাস্টের মধ্যে ১০০ কোটি টাকার চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ ঘোষণা দেন। সভায় উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো: সোহরাব হোসাইন ও অবসর সুবিধাবোর্ডের সদস্য-সচিব অধ্যক্ষ শরীফ আহমদ সাদীসহ অন্যরা।
এর ফলে এমপিওভুক্ত প্রায় পাঁচ লাখ শিক্ষক-কর্মচারী প্রতিবছর সরকারি শিক্ষকদের মতো বৈশাখী ভাতা ও পাঁচ শতাংশ প্রবৃদ্ধি পাবেন।
গণভবনে সভাশেষে মো: সোহরাব হোসাইন দৈনিক শিক্ষাকে বলেন, ‘এইমাত্র মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বেসরকারি শিক্ষকদের মূল বেতনের ২০ শতাংশ বৈশাখী ভাতা ও ৫ শতাংশ বার্ষিক ইনক্রিমেন্ট দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। বেসরকারি শিক্ষাখাতে এক বিপ্লব ঘটে গেল।’
বৈশাখী ভাতা বকেয়া দেয়া হবে কি-না, দৈনিক শিক্ষার এমন প্রশ্নের জবাবে সোহরাব হোসাইন বলেন, ‘আগামী বৈশাখ থেকে শিক্ষক-কর্মচারীরা বৈশাখী ভাতা পাবেন। এ বাবদ একবছরে ১৭৭ কোটি ২৭ লাখ ৪৯ হাজার টাকা ব্যয় হবে। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে এ টাকা বরাদ্দ রেখেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। এখন অর্থ মন্ত্রণালয় অর্থছাড় দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করবে।’
তিনি বলেন, পাঁচ শতাংশ বার্ষিক প্রবৃদ্ধির জন্য বছরে ব্যয় হবে ৫৩১ কোটি ৮২ লাখ টাকা। অর্থ মন্ত্রণালয় এ টাকা বরাদ্দ রেখেছে।
শরীফ আহমদ সাদী দৈনিক শিক্ষাকে বলেন, ‘জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনার প্রতি ৫ লাখ বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারী আজীবন কৃতজ্ঞ থাকবেন। প্রধানমন্ত্রীকে জানাই আন্তরিক অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা। তিনি আজ আমাদের গণভবনে ডেকে বৈশাখী ভাতা, ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট ও অবসর-কল্যাণের ফান্ডে অর্থ বরাদ্দসহ একগুচ্ছ সুসংবাদ দিয়েছেন। এই সুসংবাদের কথা গত এপ্রিলেই আমাদের জানানো হয়েছিল এবং শিক্ষাবিষয়ক দেশের একমাত্র জাতীয় পত্রিকা দৈনিক শিক্ষাডটকম’র মাধ্যমে তা দেশের সব শিক্ষক-কর্মচারী জানতে পেরেছিলেন। শিক্ষকরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন এই দিনটির জন্য। আজ সেই শুভক্ষণ।’

বৃহস্পতিবার বৈশাখী ভাতা ও ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট ঘোষণার পর বেসরকারি শিক্ষকদের আনন্দ মিছিল। ছবি : দৈনিক শিক্ষা
বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের প্রাণের দাবি মেনে নেয়ায় বাংলাদেশ অধ্যক্ষ পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ মাজহারুল হান্নান প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।
স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো: শাহজাহান আলম সাজু দৈনিক শিক্ষাকে বলেন, গণভবন থেকে বেরিয়ে শিক্ষকরা আনন্দ মিছিল করেছেন। রোববার সারাদেশে আননদ মিছিল করবেন শিক্ষকরা।
বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. কাওছার আলী ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আবু জামিল মো. সেলিম প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। এছাড়াও অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি (বাশিস) সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম রনি, বাংলাদেশ শিক্ষক ইউনিয়নের সভাপতি মো. আবুল বাশার হাওলাদার, বাংলাদেশ মাদরাসা জেনারেল টিচার্স এসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মো. হারুন অর রশিদ।
কোনো গোষ্ঠী বা সংগঠনের দাবি নয়, নিজে থেকেই সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য বৈশাখী ভাতা চালু করেন শেখ হাসিনা। জাতীয় বেতনস্কেল ২০১৫ চালু হওয়া থেকে প্রতিবছর বৈশাখী ভাতা পেয়ে আসছেন তারা। একইভাবে ৫ শতাংশ বার্ষিক প্রবৃদ্ধিও পেয়ে আসছেন সরকারি শিক্ষকসহ সব সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। কিন্তু অনুদানভুক্ত বেসরকারি শিক্ষকদের দাবির প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী এই ঘোষণা দিলেন।hasina7

বিজ্ঞান

শীতকালে প্রতিদিন ১ টা করে পেয়ারা খেলে কি হতে পারে

পেয়ারার উপস্থিত ভিটামিন সি, লাইকোপেন এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট মাথার চুল থেকে পায়ের নখ পর্যন্ত শরীরের প্রতিটি অংশকে সুস্থ এবং সুন্দর রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। সেই সঙ্গে এতে উপস্থিত ম্যাগনেসিয়াম, শরীর যাতে খাবারে উপস্থিত নানাবিধ পুষ্টিকর উপাদান ঠিক মতো গ্রহণ করতে পারে, সেদিকেও খেয়াল রাখে। এখানেই শেষ নয়, শরীরকে চাঙ্গা রাখতে আরও নানাভাবে সাহায্য করে থাকে এই ফলটি। যেমন ধরুন…
১. ভাবী মায়েদের জন্য দারুন উপকারি: গর্ভাবস্থায় মা এবং বাচ্চাকে সুস্থ রাখতে ফলিক অ্যাসিডের ঘাটতি যাতে মায়ের শরীরে কখনও না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখটা একান্ত প্রয়োজন। আর এই কাজে পেয়ারার কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে! কারণ এই ফলটির অন্দরে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ফলিক অ্যাসিড। তাই তো নিয়মিত পেয়ারা খাওয়া শুরু করলে ভাবী মায়ের শরীরে এই বিশেষ উপাদানটির ঘাটতি দেখা দেওয়ার আশঙ্কা আর থাকে না বললেই চলে। ফলে প্রসবের সময় এবং তার আগে কোনও ধরনের জটিলতা দেখা দেওয়ার আশঙ্কা যায় কমে।
২. ব্ল্যাকহেডস দূর হয়: এক্ষেত্রে পরিমাণ মতো পেয়ারা পাতা নিয়ে সেগুলিকে ছোট ছোট টুকরো করে নিতে হবে। তারপর তাতে জল মিশিয়ে বানিয়ে ফেলতে হবে একটি পেস্ট। এবার সেই পেস্টটি মুখে লাগিয়ে ভাল করে মাসাজ করলেই দেখবেন ব্ল্যাকহেডসের প্রকোপ কমবে চোখে পরার মতো। সেই সঙ্গে ত্বকের উপরিংশে জমতে থাকা মৃত কোষের স্তর সরে যাওয়ার কারণে ত্বকের উজ্জ্বলতাও বাড়বে চোখে পরার মতো।
৩. ব্রেন পাওয়ার বৃদ্ধি পায়: পেয়ারায় উপস্থিত ভিটামিন বি৩ এবং বি৬ মস্তিষ্কে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্তের সরবরাহ বাড়িয়ে দেয়। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ব্রেনের কগনেটিভ ফাংশন, অর্থাৎ স্মৃতিশক্তি, বুদ্ধি এবং মনোযোগের উন্নতি ঘটে।
৪. দাঁতের যন্ত্রণা কমে নিমেষে: বেশ কিছু স্টাডিতে দেখা গেছে পেয়ারা পাতার অন্দরে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান, যা নিমেষে দাঁতের ব্যথা তো কমায়ই, সেই সঙ্গে মুখ গহ্বরে উপস্থিত ক্ষতিকর জীবাণুদেরও মেরে ফেলে। ফলে মুখের বদগন্ধ দূর হতে সময় লাগে না।
৫. সংক্রমণের আশঙ্কা কমে: একেবারেই ঠিক শুনেছেন বন্ধু! আসলে এই ফলটিতে উপস্থিত অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এজেন্ট, শরীরে প্রবেশ করা মাত্র ক্ষতিকর জীবাণুদের মারতে শুরু করে। ফলে কোনও ধরনের সংক্রমণের আশঙ্কা কমে যায়। সেই সঙ্গে শরীরে উপস্থিত সমস্ত ধরনের বিষাক্ত উপাদানও বেরিয়ে যায়। ফলে নিমেষে শরীর চাঙ্গা হয়ে ওঠে। সেই সঙ্গে আয়ুও বাড়ে চোখে পরার মতো।
৬. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা আরও শক্তিশালী হয়ে ওঠে: আপনাদের কি জানা আছে পেয়ারায় রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন সি, যা শরীরের রোগ প্রতিরোধী ব্যবস্থাকে এতটা মজবুত করে তোলে যে ছোট-বড় কোনও ধরনের রোগই ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না। এখানেই শেষ নয়, নানা ধরনের সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচাতেও ভিটামিন সি বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। সেই কারণেই তো একেবারে ছোট বেলা থেকে বাচ্চাদের পেয়ারা খাওয়ানোর পরামর্শ দিয়ে থাকেন বিশেষজ্ঞরা।
৭. স্কিন টোনার হিসেবে দারুন কাজে আসে: প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন, মিনারেল এবং নানাবিধ উপকারি উপাদান থাকার কারণে শুধু পেয়ারা নয়, পেয়ারা পাতাকেও স্কিন টোনার হিসেবে কাজে লাগানো যেতে পারে। এক্ষেত্রে এক বাটি জলে পেয়ারা অথবা পেয়ারা পাতা সেদ্ধ করে সেই জল দিয়ে মুখ ধুতে হবে। এমনটা করলে ত্বকের অন্দরে পুষ্টির ঘাটতি দূর হয়। ফলে ত্বকের সৌন্দর্য বাড়তে সময় লাগবে না। প্রসঙ্গত, এই ঘরোয়া টোটকাটিকে কাজে লাগালে ত্বক বেজায় টানটান হয়ে ওঠে। যে কারণে বলিরেখার হাত থেকেও নিস্তার মেলে। প্রসঙ্গত, ব্রণর প্রকোপ কমাতেও একইভাবে যদি পেয়ারাকে কাজে লাগাতে পারেন, তাহলে কিন্তু দারুন উপকার পাওয়া যায়।
৮. ত্বককে ফর্সা করে তোলে: অল্প পরিমানে পেয়ারার খোসা নিয়ে তার সঙ্গে ডিমের কুসুম মিশিয়ে একটা মিশ্রন বানিয়ে ফেলুন। তারপর সেটি ভাল করে মুখে লাগিয়ে কম করে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। সময় হয়ে গেলে হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন মুখটা। এইভাবে সপ্তাহে ২-৩ ত্বকের পরিচর্যা করলে দেখবেন ত্বক ফর্সা এবং উজ্জ্বল হয়ে উঠতে সময় লাগবে না।
৯.দৃষ্টিশক্তির উন্নতি ঘটে: প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন এ থাকার কারণে নিয়মিত পেয়ারা খেলে দৃষ্টিশক্তির মারাত্মক উন্নতি ঘটে। সেই সঙ্গে ছানি, ম্যাকুলার ডিজেনারেশন এবং গ্লকোমার মতো রোগও দূরে থাকে।
১০. রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে চলে আসে: একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে প্রতিদিন একটা করে পেয়ারা খাওয়া শুরু করলে দেহের অন্দরে পটাশিয়ামের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে, যার প্রভাবে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে চলে আসতে সময় লাগে না।
১১. হার্টের ক্ষমতা বাড়ে: শরীরে সোডিয়াম এবং পটাশিয়াম লেভেল ঠিক রাখার মধ্যে দিয়ে ব্লাড প্রেসারকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে বিশেষ ভূমিকা নেয় পেয়ারা। শুধু তাই নয়, ট্রাইগ্লিসারাইড এবং ক্ষতিকর কোলেস্টরলের মাত্রা কমিয়ে হার্টকে সুস্থ রাখতেও সাহায্য় করে এই ফলটি। তাই যাদের পরিবারে উচ্চ রক্তচাপ এবং হার্টের রোগের ইতিহাস রয়েছে, তারা নিয়মিত পেয়েরা খাওয়া শুরু করুন, দেখবেন উপকার মিলবে।
১২. অতি বেগুনি রশ্মির প্রভাবে ক্ষতি হয় কম: পেয়ারায় রয়েছে লাইকোপেন নামক একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা অতি বেগুনি রশ্মির ক্ষতিকারক প্রভাব থেকে ত্বককে বাঁচাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। সেই সঙ্গে সূর্যালোকের কারণে ত্বকের সৌন্দর্য যাতে না কমে, সেদিকেও খেয়াল রাখে। এক্ষেত্রে পরিমাণ মতো পেয়ারা নিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। তারপর তা মুখে লাগিয়ে কিছু সময় অপেক্ষা করে ধুয়ে ফেলতে হবে মুখটা। সপ্তাহে ৩-৪ দিন এমনভাবে ত্বকের পরিচর্যা করলেদেখবেন দারুন উপকার পাবেন।
১৩. হেয়ার ফলের মাত্রা কমে: অতিরিক্তি চুল পড়ে যাওয়ার কারণে যদি চিন্তায় থাকেন, তাহলে পেয়ারাকে কাজে লাগাতে ভুলবেন না যেন! আসলে ভিটামিন সি-তে পরিপূর্ণ থাকার কারণে এই ফলটি নিয়মিত খেলে স্কাল্পের অন্দরে পুষ্টির ঘাটতি দূর হয়। সেই সঙ্গে চুলের গোড়া শক্তপোক্ত হয়ে ওঠে। ফলে মাত্রাতিরিক্তি চুল পড়ে যাওয়ার সমস্যা কমতে সময় লাগে না।
১৪. ক্যান্সারের মতো মরণ রোগ দূরে থাকে: ক্রমবর্ধমান এই মরণ রোগকে থামাতে পারে একমাত্র প্রকৃতি। কারণ প্রকৃতির অন্দরেই রয়েছে সেই শক্তি, যা আমাদের ক্যান্সার রোগ থেকে দূরে রাখতে পারে। যেমন পোরার কথাই ধরুন না। এতে উপস্থিত লাইকোপেন, কুয়েরসেটিন, ভিটামিন সি এবং পলিফেনল শরীরের অন্দরে জমতে থাকা ক্ষতিকর টক্সিক উপাদানদের বার করে দেয়। ফলে ক্যান্সার সেল জন্ম নেওয়ার আশঙ্কা অনেক কমে যায়। প্রসঙ্গত, একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে ব্রেস্ট এবং প্রস্টেট ক্যান্সার রোধে পেয়ারার কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে।
১৫. ত্বকের আদ্রতা বজায় থাকে: ডামার্টোলজিস্টদের মতে ত্বক যত আদ্র থাকবে, তত তার সৌন্দর্য বাড়বে। তাই কখনও যাতে ত্বকের আদ্রতা না কমে, সেদিকে খেয়াল রাখাটা জরুরি। আর এই কাজে আপনাকে সাহায্য করতে পারে পেয়ারা। আসলে এই ফলটির শরীরের ৮১ শতাংশই জলে পরিপূর্ণ। তাই তো নিয়মিত একটা করে পেয়ারা খেলে ত্বকের অন্দরে জলের ঘাটতি দূর হয়। ফলে আদ্রতা কমে যাওয়ার আশঙ্কা কমে।
১৬. কোষ্ঠকাঠিন্যের প্রকোপ কমে: শরীরে ফাইবারের মাত্রা বাড়তে থাকলে পেটের রোগ যেমন কমে, তেমনি কনস্টিপেশনের মতো সমস্যাও দূরে পালায়। আর ফলেদের দুনিয়ায় পেয়ারায় মধ্যেই রয়েছে সবথেকে বেশি মাত্রায় ফাইবার। তাই প্রতিদিন সকালে প্রকৃতির ডাকে সারা দেওয়ার সময় যদি বেজায় কষ্ট পোয়াতে হয়, তাহলে আজ থেকেই পেয়ারাকে রোজের সঙ্গী বানান। দেখবেন কষ্ট একেবারে কমে যাবে।
১৭. স্ট্রেসের প্রকোপ কমে: গত কয়েক দশকে আমাদের দেশের পাশাপাশি সমগ্র বিশ্বে যে রোগগুলির প্রকোপ চোখে পরার মতো বৃদ্ধি পেয়েছে, সেগুলির প্রায় সবকটির সঙ্গেই মানসিক চাপ বা স্ট্রেসের সরাসরি যোগ রয়েছে। তাই সময় থাকতে থাকতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়াটা জরুরি। এক্ষেত্রে পেয়ারা আপনাকে দারুনভাবে সাহায্য করতে পারে। আসলে এতে উপস্থিত ম্যাগনেসিয়াম নার্ভের চাপ কমানোর মধ্যে দিয়ে স্ট্রেস কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।
১৮. রক্তে সুগারের মাত্রাকে নিয়ন্ত্রণে চলে আসে: পেয়ারায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, যা রক্তে শর্করার মাত্রাকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। আর এই ফলটি যেহেতু গ্লাইকেমিক ইনডেক্সে একেবারে নিচের দিকে আসে, তাই পেয়েরা খেলে ব্লাড সুগার বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কাও থাকে না। তাই ডায়াবেটিক রোগীরা নিশ্চিন্তে এই ফলটি খেতে পারেন।
১৯. ত্বকের বয়স কমে যায়: নানা কারণে অসময়েই কি বুড়িয়ে যাচ্ছে ত্বক, সেই সঙ্গে প্রকাশ পাচ্ছে বলিরেখা? তাহলে বন্ধু আজ থেকেই ত্বকের পরিচর্যায় পেয়ারাকে কাজে লাগাতে শুরু করুন। দেখবেন উপকার পাবেন। আসলে এই ফলটিতে উপস্থিত ভিটামিন এ, বি, সি এবং পটাশিয়াম, ত্বকের অন্দরে জমতে থাকা ক্ষতিকর টক্সিক উপাদানদের বের করে দেয়। সেই সঙ্গে স্কিন সেলেদের যাতে কোনওভাবে ক্ষতি না হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ত্বকের বয়স তো কমেই, সেই সঙ্গে বলিরেখাও মিলিয়ে যেতে শুরু করে। এই কারণেই তো ত্বকের পরিচর্যায় নিয়মিত পেয়ারাকে কাজে লাগানোর পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিৎসকেরা

জাতীয়

দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহের শো-ডাউন বন্ধের নির্দেশ

মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দেয়ার সময় কেউ যাতে শোডাউন করতে না পারে এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

আজ মঙ্গলবার মন্ত্রীপরিষদ ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশি­ষ্ট সাবাইকে পাঠানো এক চিঠিকে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় প্রকাশিত প্রতিবেদন হতে জানা যায় যে, নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের দলীয় কার্যালয়ে সম্ভাব্য প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র গ্রহণ বা জমাদানের সময় মোটরসাইকেল ও অন্যান্য যানবাহন সহকারে মিছিল এবং শোডাউন করা হচ্ছে- যা সংসদ নির্বাচনে রাজনেতিক দল ও প্রার্থী আচরণ বিধিমালা-২০০৮-এর ৮ বিধির সুষ্পষ্ট লঙ্ঘন।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের যুগ্মসচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান স্বাক্ষরিত এই চিঠিতে বলা হয়, কোনো নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল, দলের প্রার্থী বা স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং তাদের পক্ষে এ ধরনের মিছিল শো-ডাউন করা যাবে না। এ বিষয়ে আচরণ বিধি প্রতিপালনের বিষয়টি নিশ্চিত মকরতে হবে। এছাড়া এর পর রিটানিং এবং সহকারী রিটার্নিং অফিসারের কাছে মনোনয়নপত্র দাখিলের সময়ও এ ধরণের মিছিল ও শোডাউনের ঘটনা যাতে না ঘটে সেটাও নিশ্চিত করতে হবে।

জাতীয়

দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় ‘গাজা’

পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর এবং তৎসংলগ্ন পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘গাজা’ পশ্চিম-দক্ষিণপশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে আজ সকাল ৬ টায় দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগর এবং তৎসংলগ্ন দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এবং পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছিল। এটি আরো ঘনীভূত হয়ে পশ্চিম-দক্ষিণপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের এক বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর এবং তৎসংলগ্ন পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড়টি আজ সকাল ৬ টায় চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ১২০৫ কি.মি দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১১৪০ কি.মি. দক্ষিণপশ্চিমে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১১৩০ কি.মি. দক্ষিণপশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ১১১০ কি.মি. দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল।

ঘূর্ণিঝড়টির কেন্দ্রের ৫৪ কি.মি. মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতি ঘণ্টায় ৬২ কি.মি যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়া আকারে ৮৮ কি.মি. পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দর সমূহকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার সকল নৌকা ও ট্রলারসমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

রাজনীতি

জাপা থেকে মনোনয়নপত্র কিনলেন হিরো আলম

বগুড়া-৪ আসন থেকে নির্বাচন করতে জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন অভিনেতা হিরো আলম। আজ সোমবার বিকালে তিনি দলটির কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের ও প্রেসিডিয়াম সদস্য চিত্রনায়ক মাসুদ পারভেজ সোহেল রানার কাছ থেকে মনোনয়নপত্রটি সংগ্রহ করেন।
এসময় তিনি বলেন, প্রথম দিকে বগুড়া-৬ সদর আসনে নির্বাচন করার কথা বলেছিলাম। কিন্তু বগুড়া-৪ আসনে আমার গ্রহণযোগ্যতা বেশি। যেকারণে সেখান থেকেই নির্বাচন করব।
হিরো আলম বলেন, আমি আগে থেকেই একটু বেশি সাহসী। আমার জীবনে ব্যর্থতা বলতে কিছু নেই। ইনশাল্লাহ এখানেও আমি আশাবাদী।

জাতীয়

নৌকার মনোনয়ন কিনলেন ১১ তারকা, দেখে নিন কে কোন আসন থেকে…

দলীয় নেতাকর্মীদের পাশাপাশি একাদশ জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র কিনছেন তারকারাও। এখন পর্যন্ত ১১ জন তারকা আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র কিনেছেন।
এরা হলেন চিত্রনায়িকা সারাহ বেগম কবরী, অভিনেত্রী তারানা হালিম, শিল্পী মমতাজ, অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচী, চিত্রনায়ক শাকিল খান, অভিনেতা সিদ্দিকুর রহমান, অভিনেতা ডিপজল, অভিনেতা ফারুক, অভিনেত্রী শমী কায়সার, ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজা ও ক্রিকেটার দুর্জয়।
এবার নারায়ণগঞ্জ ছেড়ে ঢাকা-১৭ আসনের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন চিত্রনায়িকা সারাহ বেগম কবরী। রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে তিনি নিজেই মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। কবরী ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীকে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। তবে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জের ওই আসনটিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেন এ কে এম শামীম ওসমান।
তথ্যপ্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট তারানা হালিম টাঙ্গাইল-৬ (দেলদুয়ার নাগরপুর ) আসন থেকে নির্বাচন করবেন। এর আগে সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি ছিলেন তিনি। তথ্যপ্রতিমন্ত্রীর আগে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন তিনি।
আওয়ামী লীগের হয়ে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করছেন কণ্ঠশিল্পী মমতাজ। ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মানিকগঞ্জ-২ (সিঙ্গাইর-হরিরামপুর) আসন থেকে আওয়ামী লীগের টিকিটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। এবারেও একই আসন থেকে নির্বাচনের জন্য মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। দলের রাজনৈতিক কার্যালয়ের পাশে নির্বাচনী অফিস থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন তিনি।
ফেনী-৩ আসনে আওয়ামী লীগের হয়ে নির্বাচনের জন্য মনোনয়ন ফরম কিনেছেন অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচী। মহিলা আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক রোকেয়া প্রাচী ফেনী জেলার সোনাগাজী-দাগনভূঞা উপজেলায় নৌকার হাল ধরতে চান।
বাগেরহাট-৩ আসনের জন্য আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন চিত্রনায়ক শাকিল খান। আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে তিনি মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন।
টাঙ্গাইল-১ আসন থেকে নির্বাচন করার জন্য মনোনয়নপত্র কিনেছেন অভিনেতা সিদ্দিকুর রহমান। মধুপুর-ধনবাড়ী এই দু’টি উপজেলা নিয়ে টাঙ্গাইল-১ আসন গঠিত। এই আসনের আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।
শহীদ শহীদুল্লাহ কায়সারের কন্যা অভিনেত্রী শমী কায়সার ফেনী-৩ আসনে জন্য মনোনয়নপত্র কিনেছেন।
ঢাকা-১৪ (মিরপুর) আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম কিনেছেন চলচ্চিত্র অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজল।
নড়াইল-২ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে লড়াই করতে মনোনয়নপত্র কিনেছেন জাতীয় ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। এসময় তিনি জানিয়েছেন, নড়াইলকে সুন্দর ও আধুনিক করে সাজাতে চান তিনি।
মানিকগঞ্জ-১ আসনের নির্বাচনে অংশ নিতে দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন বর্তমান সংসদ এ,এম, নাঈমুর রহমান দুর্জয়।
গাজীপুর-৫ আসনে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ পেতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম কিনলেন চলচ্চিত্র অভিনেতা ঢাকাই সিনেমার মিঞাভাই খ্যাত গ্রাম-বাংলার মানুষের প্রিয় নায়ক ফারুক।
উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তফসিল অনুযায়ী, নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৩ ডিসেম্বর (রোববার)। নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১৯ নভেম্বর (সোমবার)। মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের দিন ২২ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার)। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৯ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার)।